1. [email protected] : BD News : BD News
  2. [email protected] : Breaking News : Breaking News
  3. [email protected] : sohag :
ক্ষমতাবান আমলারা অবসরের পর কেন হারিয়ে যাচ্ছে | News12
January 29, 2022, 7:39 am

ক্ষমতাবান আমলারা অবসরের পর কেন হারিয়ে যাচ্ছে

Staff Reporter
  • Update Time : Sunday, December 26, 2021
  • 158 Time View

আওয়ামী লীগ টানা দ্বিতীয় মেয়াদে ক্ষমতায় রয়েছে। তিন মেয়াদের মধ্যেই আমলাদের বাড়বাড়ন্ত ছিল লক্ষণীয়। আওয়ামী লীগ ক্ষমতায় আসার পর বিভিন্ন সময় বিভিন্ন আমলারা ক্ষমতাবান হয়ে উঠেছিলেন। এমনকি তারা অনেক সময় সরকারের নীতিনির্ধারক পর্যন্ত হয়েছিলেন।

কিন্তু প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা একক আমলার ওপর নির্ভরশীল থাকেনি। বরং বিভিন্ন সময় আমলাদেরকে পরিবর্তন করেছেন। এমনকি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের সচিব বা মুখ্য সচিব, এমনকি তার একান্ত সচিব তিনি বারবার পরিবর্তন করেছেন।

যার ফলে দেখা গেছে যে, একদা ক্ষমতাবান আমলা কিছুদিন পরে ক্ষমতাহীন হয়ে গেছেন। আবার দেখা গেছে, অনেক ক্ষমতাবান আমলা অবসরের পরে হারিয়ে গেছেন। এরকম কয়েকজনকে নিয়েই আমাদের এই প্রতিবেদন।

১. মোল্লা ওয়াহিদুজ্জামান: আওয়ামী লীগ ২০০৮ সালের নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে ২০০৯ সালে ক্ষমতা গ্রহণ করে। এ সময় অন্যতম ক্ষমতাবান আমলা ছিলেন মোল্লা ওয়াহিদুজ্জামান। মোল্লা ওয়াহিদুজ্জামান প্রধানমন্ত্রীর সচিব, পরবর্তীতে প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব হয়েছিলেন। তাকে তিন বছরের চুক্তিভিত্তিক নিয়োগও দেয়া হয়েছিল। অবসরের পরে তিনি প্রথমে একটি জায়গায় নিয়োগ পেয়েছিলেন কিন্তু সেই নিয়োগও এখন তার নেই। নরসিংদীতে নির্বাচন করা নিয়ে গুঞ্জন ছিল কিন্তু এখন মোল্লা ওয়াহিদুজ্জামান অনেকটাই হারিয়ে গেছেন।

২. আবুল কালাম আজাদ: আওয়ামী লীগের ১৩ বছর মেয়াদের সময় সবচেয়ে প্রভাবশালী আমলা হিসেবে পরিচিত ছিলেন আবুল কালাম আজাদ। তিনি প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ছিলেন, তার আগে তিনি ইআরডি সচিব এবং বিদ্যুৎ সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। প্রধানমন্ত্রীর মুখ্যসচিব থেকে অবসর গ্রহণের পরে তাকে তিন বছরের জন্য চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ দেওয়া হয় এসডিজি বিষয়ক সমন্বয়কারী হিসেবে। কিন্তু ২০১৮ সালের নির্বাচনের পর তার চুক্তির মেয়াদ শেষ হয়ে গেলে তার চুক্তি আর বাড়ানো হয়নি। এরপর তিনি রিজেন্ট হাসপাতালের সাহেদ বিতর্কে জড়িয়ে পড়লে অনেকটাই কোণঠাসা হয়ে পড়েন। এখন বৃহত্তর ময়মনসিংহ সমিতির সভাপতি হিসেবে সদ্য নির্বাচিত হয়েছেন। কিন্তু তার যে প্রভাব-প্রতিপত্তি ছিলো আমলা হিসেবে, তার ধারেকাছেও এখন তিনি নেই।

৩. নজিবুর রহমান: নজিবুর রহমান আরেক ভাগ্যবান এবং ক্ষমতাবান আমলা হিসেবে পরিচিত ছিলেন। তিনি এনবিআরের চেয়ারম্যান ছিলেন, সেখান থেকে তিনি প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ে মুখ্য সচিব হিসেবে যোগদান করেছিলেন। মুখ্যসচিব থাকা অবস্থায় তার ক্ষমতার দাপট ছিল চোখে পড়ার মত। কিন্তু তিনি চুক্তিভিত্তিক নিয়োগ পাননি এবং অবসরের পরে এখন তিনি হারিয়ে যাওয়া একটি অধ্যায়। প্রশাসন বা রাজনীতি, কোন অঙ্গনেই তার কোন খোঁজ খবর নেই।

৪. আবদুল মালেক: আবদুল মালেক ৮৪ ব্যাচের একজন দাপটে কর্মকর্তা ছিলেন। তিনি প্রধানমন্ত্রীর একান্ত সচিব হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। পরবর্তীতে তিনি স্থানীয় সরকার সচিব এবং তথ্য সচিব হিসেবে অবসর গ্রহণ করেন। এখন তথ্য অধিকার কমিশনের সদস্য হিসেবে কাজ করছেন। আমলা হিসেবে যে দাপট এবং ক্ষমতা তার ছিল, সেই ছিটেফোঁটাও এখন আর তার নেই।

৫. ইকবাল মাহমুদ: ইকবাল মাহমুদ জনপ্রশাসন সচিব ছিলেন ২০০৯ সালে। জনপ্রশাসন সচিব থেকে তাকে এশিয়ান উন্নয়ন ব্যাংকে সরকার নিয়োগ দেয়। সেখান থেকে আসার পর তিনি দুর্নীতি দমন কমিশনের চেয়ারম্যান হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। দুর্নীতি দমন কমিশনের চেয়ারম্যানের মেয়াদ শেষ হয়ে যাওয়ার পরে এখন নিজেকে তিনি গুটিয়ে রেখেছেন। তেমন কোন আলোচনায় তাকে দেখা যায় না।

আমলা হিসেবে দাপুটে এবং ক্ষমতাবান অনেকেই এখন হারিয়ে হারিয়ে গেছেন। প্রধানমন্ত্রীর প্রথম একান্ত সচিব এবং পরবর্তীতে প্রধানমন্ত্রীর সচিব নজরুল ইসলাম খান এখন জাতির জনক বঙ্গবন্ধু মেমোরিয়াল ট্রাস্ট এর একজন সদস্য হিসেবে রয়েছেন। আরেক দাপুটে আমলা আবু আলম শহিদ খান এখন সুশীল সমাজের প্রতিনিধিরা টকশোতে বক্তব্য বিবৃতি দেন। আওয়ামী লীগ সরকারের আমলে ক্যাবিনেট সেক্রেটারি মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া বিশ্বব্যাংকে সরকারের মনোনয়ন শেষে এসে এখন বিশ্ববিদ্যালয়ে পড়াশোনা করাচ্ছেন। এরকম অনেক আমলা যারা যখন দায়িত্বে ছিলেন তখন প্রচণ্ড ক্ষমতাবান এবং আওয়ামী লীগের অন্যতম নীতিনির্ধারক হিসেবে নিজেদেরকে জাহির করতেন, তারা এখন হারিয়ে যাওয়া অধ্যায়।

সোর্স: বাংলা ইনসাইডার

Please Share This Post in Your Social Media

Comments are closed.

Releted
কপিরাইট : সর্বস্বর্ত সংরক্ষিত (c) ২০২২
Develper By ITSadik.Xyz