1. [email protected] : BD News : BD News
  2. [email protected] : Breaking News : Breaking News
বঙ্গবন্ধুকে খুশি করতে গিয়ে আল্লাহকে নারাজ করবো নাকি? | News12
January 21, 2022, 8:36 pm

বঙ্গবন্ধুকে খুশি করতে গিয়ে আল্লাহকে নারাজ করবো নাকি?

Staff Reporter
  • Update Time : Thursday, November 25, 2021
  • 8 Time View

সম্প্রতি রাজশাহীর কাটাখালী পৌরসভায় নৌকা প্রতীকে দুইবারের নির্বাচিত মেয়র আব্বাস আলীর এ অডিও ক্লিপটি ছড়িয়ে পড়েছে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের মুর‌্যাল স্থাপন ইসলামের চোখে মহাপাপ; সে কারণে রাজশাহী সিটি গেটে জীবন দিয়ে হলেও বঙ্গবন্ধুর মুর‌্যাল বসাতে না দেওয়ার নির্দেশ দেওয়া সংক্রান্ত একটি অডিও ক্লিপ ছড়িয়ে পড়ার অভিযোগ উঠেছে রাজশাহীর কাটাখালী পৌরসভায় আওয়ামী লীগের মনোনয়নে নৌকা প্রতীকে দুইবারের নির্বাচিত মেয়র আব্বাস আলীর বিরুদ্ধে। গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র জাহাঙ্গীর আলমের জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে কটূক্তির রেশ কাটতে না কাটতেই এক মিনিট ৫১ সেকেন্ডের বক্তব্যটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে।

রবিবার (২১ নভেম্বর) রাত থেকে অডিওটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফাঁস হওয়া অডিওতে শোনা যাচ্ছে, মেয়র আব্বাস একজনকে বলছেন, “সিটি গেট আমার অংশে।. ফুটপাত, সাইকেল লেন টোটাল আমার অংশটা। কিন্তু একটু ঠেকে গেছি গেটটা নিয়ে। একটু চেঞ্জ করতে হচ্ছে যে মুর‌্যালটা দিয়েছে বঙ্গবন্ধুর, সেটা ইসলামি শরীয়ত মতে সঠিক নয়। এ জন্য আমি ওটা থুবো না, সব করব তবে শেষ মাথাতে যেটা ওটা (মুর‌্যাল)।”

জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে কটূক্তি এবং বঙ্গবন্ধুর মুর‌্যাল নির্মাণ প্রতিহতের ঘোষণা দেওয়ার প্রতিবাদে রাজশাহীর পবা উপজেলার কাটাখালী পৌরসভার মেয়র ও পৌর আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক আব্বাস আলীর বিরুদ্ধে বিক্ষোভের ডাক দেয় আওয়ামী লীগ।

বুধবার (২৪ নভেম্বর) বেলা সাড়ে ১০টায় কাটাখালি বাজারে এ বিক্ষোভের কর্মসূচি ঘোষণার করেন পৌরসভা আওয়ামী লীগের যুগ্ম আহবায়ক জহুরুল আলম রিপন।

এর আগে মঙ্গলবার (২৩ নভেম্বর) দুপুরে তিনি কর্মসূচি ঘোষণা করে সাংবাদিকদের বলেন, “আওয়ামী লীগ এবং অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের পক্ষ থেকে এই বিক্ষোভের কর্মসূচি দেওয়া হয়েছে। আমাদের দাবি, দ্রুত মেয়র আব্বাস আলীকে আওয়ামী লীগ থেকে স্থায়ীভাবে বহিষ্কার করতে হবে।” এছাড়াও তার বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিয়ে মেয়র পদ থেকেও তাকে অপসারণ করার দাবি জানানো হবে এই বিক্ষোভ কর্মসূচিতে।

ইসলামের দৃষ্টিতে পাপ.. সে জন্য রাজশাহী সিটি গেটে বঙ্গবন্ধুর মুর‌্যাল না বসানোর নির্দেশে রাজশাহীজুড়ে তোলপাড় শুরু হয়েছে। যদিও পুরো ঘটনাটি অস্বীকার করেছেন মেয়র আব্বাস।”

অডিওতে তাকে আরও বলতে শোনা যায়, “আমি দেখতে পাচ্ছি আমাকে যেভাবে বুঝাইছে যে মুর‌্যালটা ঠিক হবে না দিলে; আমার পাপ হবে; তো কেন দিব না। আমিতো কানা না, যেভাবে বোঝাইছে তাতে আমার মনে হয়েছে মুর‌্যালটা হলে আমার ভুল করা হবে। এ খবরটা যদি যায় তাহলে আমার রাজনীতির বারোটা বাজবে; এই মুর‌্যাল দিত চেয়ে দিছে না। তাহলে বঙ্গবন্ধুকে খুশি করতে গিয়েৃ আল্লাহকে নারাজ করবো নাকি। এ জন্য কিছু করার নাই। মানুষেক সন্তুষ্ট করতে গিয়ে আল্লাহকে অসন্তস্ট করা যাবে না।’

কাটাখালি পৌরসভার মেয়র আব্বাস আলী পৌরসভা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক। তিনি জেলা আওয়ামী লীগেরও সদস্য। তবে অডিওটি তার নয় বলে দাবি করে পুরো ঘটনা অস্বীকার করে তিনি বলেন, “মুর‌্যাল করা যাবে না, মুর‌্যাল করলে পাপ হবে, এ ধরণের কথা আমার সঙ্গে করাও হয়নি।”

রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অনিল কুমার সরকার বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে কটূক্তি করলে তার আওয়ামী লীগ করার অধিকার থাকে না। কাটাখালির মেয়র বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে যদি কোন কটূক্তি করে থাকে তার বিরুদ্ধে দলীয় ও আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

রাজশাহী জেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আসাদুজ্জামান আসাদ বলেন, “মেয়র আব্বাস যদি এই ধরনের কথা বলেই থাকেন, তবে তিনি দলে থাকার যোগ্যতা হারিয়েছেন। আওয়ামী লীগের রাজনীতি করবে আর বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে কটূক্তি করবে এটা মেনে নেওয়া যাবে না।”

অপরদিকে মেয়র আব্বাসের অডিওটি ফাঁস হবার পর আওয়ামী লীগ এবং অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীদের মধ্যে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া লক্ষ্য করা গেছে। দলটির বিভিন্ন পর্যায়ের

নেতাকর্মীরা আব্বাসকে আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কারের দাবি জানিয়েছেন। এ ঘটনায় ফেসবুকে শুরু হয়েছে তোলপাড়। চলছে একের পর এক বিভিন্ন ধরনের পোস্ট।

রাজশাহী মহানগর ছাত্রলীগের সাবেক সভাপতি রকি কুমার ঘোষ ফেসবুকে আব্বাসকে উদ্দেশ্য করে লিখেছেন, “জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, দেশরত্ন জননেত্রী শেখ হাসিনা, এএইচএম খায়রুজ্জামান লিটন ভাইকে অপমানজনক মন্তব্য করে এখনও আওয়ামী লীগ করে কীভাবে? কুলাঙ্গার আব্বাসের জনতার আদালতে বিচার হওয়া উচিত। মুখে মিষ্টি কথা আর অন্তরে বিষ, এদের জন্য আওয়ামী লীগের আজ এই অবস্থা। পরিবারের খোঁজ নেন, তাহলেই আসল চরিত্র বেরিয়ে আসবে এই আব্বাসের।… কত বড় বেইমান। মাননীয় নেত্রী, এরকম অসংখ্য আব্বাস আওয়ামী লীগে বিদ্যমান। অভিযান শুরু করুন।”

ছাত্রলীগের সাবেক কেন্দ্রীয় নেতা বর্তমানে রাজশাহী মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের দপ্তর সম্পাদক অরবিন্দ দত্ত তার ফেসবুক আইডিতে লেখেন, “জাতিরপিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের অবমাননার জন্য কুলাঙ্গার বেঈমান জামায়াত-শিবিরের এজেন্ডা বাস্তবায়নকারী আব্বাস আলীর বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ থেকে বহিষ্কার, মেয়র পদ থেকে দ্রুত অপসারণ এবং আইন অনুযায়ী দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি চাই। বঙ্গবন্ধু ও মুজিব আদর্শের ক্ষেত্রে কোন আপস চলবে না।”

মেয়র আব্বাসের ধৃষ্টতাপূর্ণ বক্তব্যের প্রতিবাদ জানিয়ে এবং তাকে বহিষ্কারের দাবিতে আওয়ামীলীগ ও অঙ্গ সংগঠনের নেতাকর্মীদের অসংখ্য পোস্ট লক্ষ্য করা গেছে।

সম্প্রতি বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে কটূক্তি করা গাজীপুর সিটি করপোরেশনের মেয়র জাহাঙ্গীর আলমের একটি অডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। এর পর গত ৩ অক্টোবর তাকে কারণ দর্শনের নোটিশ দেওয়া হয়। আর তাকে আওয়ামী লীগ থেকে স্থায়ীভাবে বহিস্কার করা হয় গত ১৯ নভেম্বর।

Please Share This Post in Your Social Media

Comments are closed.

Releted
কপিরাইট : সর্বস্বর্ত সংরক্ষিত (c) ২০২২
Develper By ITSadik.Xyz