পারলে গণস্বাস্থ্য কেন্দ্রের হাসপাতালে অভিযান চালাক

0
571

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নিষেধাজ্ঞা থাকলেও গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র আরটিপিসিআর পরীক্ষা, ব্লাড ট্রান্সফিউশন ও প্ল্যাজমা সেন্টার চালু রাখবে বলে জানিয়েছেন কেন্দ্রের ট্রাস্টি ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী।

মঙ্গলবার বিকেলে দেশ রূপান্তরকে তিনি বলেন, ‘আমরা পরীক্ষা বন্ধ করবো না। স্বাস্থ্য অধিদপ্তর পারলে হাসপাতালে অভিযান চালাক। দেশের জনগণ দেখুক তারা গণস্বাস্থ্যের সঙ্গে কেমন আচরণ করছে।’

ডা. জাফরুল্লাহ বলেন, ‘আমরা ১২ আগস্ট প্লাজমা সেন্টার উদ্বোধন করার বিষয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরকে চিঠি দিয়েছিলাম; তারা তখন কিছু বলেনি।’

‘এখন হঠাৎ করে আরটিপিসিআর পরীক্ষা ও প্লাজমা সেন্টার বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছে। তাদের এ নির্দেশ পালন করা সম্ভব নয়। কারণ করোনা টেস্ট ও প্লাজমা সেন্টার করার মতো পর্যাপ্ত জনবল আমাদের আছে’ যোগ করেন তিনি।

এর আগে দুপুরে গণস্বাস্থ্যের জনসংযোগ কর্মকর্তা মো. ফরহাদ দেশ রূপান্তরকে জানিয়েছিলেন, ঝামেলা এড়াতে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের নির্দেশে গণস্বাস্থ্য নগর হাসপাতাল আরটিপিসিআর পরীক্ষা, ব্লাড ট্রান্সফিউশন ও প্ল্যাজমা সেন্টার বন্ধ রেখেছে।

গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র কর্তৃপক্ষ জানায়, গত সোমবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে ফোন করে করোনা টেস্ট ও প্লাজমা সেন্টার বন্ধ রাখার নির্দেশ দিয়েছে। একই সঙ্গে বন্ধ না করলে মোবাইল কোর্ট পাঠানোর কথাও দেওয়া হয়।

এরই পরিপ্রেক্ষিতে ডা. জাফরুল্লাহ চৌধুরী চিঠি পাঠান স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে। চিঠিতে হাসপাতালের লাইসেন্স নবায়ন এবং প্লাজমা সেন্টারের অনুমোদন দেওয়ার জন্য স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালককে অনুরোধ জানান।

চিঠিতে ডা. জাফরুল্লাহ অভিযোগ করেন, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হাসপাতাল শাখার পরিচালক দুপুরে ফোন করে এসব কার্যক্রম বন্ধ করতে বলেছেন।গত ১৫ আগস্ট গণস্বাস্থ্য কেন্দ্র আনুষ্ঠানিকভাবে প্লাজমা সেন্টার উদ্বোধন করে। এছাড়া ২৯ আগস্ট আরটিপিসিআর পরীক্ষা আনুষ্ঠানিকভাবে উদ্বোধন করা হয়।