সরকারকে সহযোগিতা করতে চায় বিএনপি

0
61

করোনা পরিস্থিতি মোকাবেলায় সরকারকে সব ধরনের সহযোগিতা করতে চায় বিএনপি। দলটির নেতারা মনে করছেন, সরকার সহযোগিতা না নিলেও বিএনপি এক্ষেত্রে ইতিবাচক অবস্থানে থাকবে।

পাশাপাশি করোনা মোকাবেলায় সরকারের প্রস্তুতি ও ত্রাণ বিতরণে নানা অনিয়মের চিত্রও তুলে ধরবে। বৃহস্পতিবার রাতে বিএনপির সর্বোচ্চ নীতিনির্ধারণী ফোরাম জাতীয় স্থায়ী কমিটির বৈঠকে এসব সিদ্ধান্ত হয়।

এছাড়া বৈঠকে জানানো হয়, এ পর্যন্ত সারা দেশে ১০ লাখ পরিবারকে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করেছে বিএনপি ও অঙ্গসংগঠন। যতদিন এই সংকট চলবে ততদিন কেন্দ্র থেকে তৃণমূলে নিজেদের সাধ্যমতো গরিব ও দুস্থ মানুষের পাশে দাঁড়ানোর নীতিগত সিদ্ধান্তও নেয়া হয়। একইভাবে করোনা পরিস্থিতিতে ঈদুল ফিতর পর্যন্ত বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের সব কর্মকাণ্ড স্থগিত থাকবে বলে সিদ্ধান্ত হয়। বিএনপির নীতিনির্ধারক একাধিক নেতার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে এসব তথ্য।

বৃহস্পতিবার রাতে স্কাইপে বিএনপির স্থায়ী কমিটির বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। লন্ডন থেকে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান বৈঠকে সভাপতিত্ব করেন। দলের মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ স্থায়ী কমিটির সদস্যরা নিজ নিজ বাসা থেকে স্কাইপে বৈঠকে যুক্ত হন।

প্রায় দেড় ঘণ্টার এই বৈঠকে চলমান করোনা পরিস্থিতিতে দলের করণীয়, সরকারকে সহযোগিতাসহ নানা বিষয়ে স্থায়ী কমিটির সদস্যরা বক্তব্য দেন। এ সময় দলের নীতিনির্ধারকরা দলীয় ও অঙ্গসংগঠনের নেতাকর্মীদের ত্রাণ বিতরণ কার্যক্রমে সন্তোষ প্রকাশ করেন।

বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ব্যারিস্টার জমিরউদ্দিন সরকার বৈঠকের কথা স্বীকার করে বলেন, আমরা বর্তমান এই দুঃসময়ে সরকারকে সার্বিক সহযোগিতা করতে চাই। কিন্তু সরকার কোনো রাজনৈতিক দলের সহযোগিতা নিচ্ছে না। তারা পরিস্থিতি নিজেরাও সামাল দিতে পারছে না। বিশ্বের সব গণতান্ত্রির রাষ্ট্রগুলো এখন মতভেদ ভুলে রাজনৈতিক দলগুলো এক কাতারে এসে জনগণের পাশে দাঁড়িয়েছে। এক্ষেত্রে ব্যতিক্রম শুধু বাংলাদেশ।

বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী বলেন, সারা দেশের সব সাংগঠনিক শাখার নেতাদের পাঠানো তথ্যে দেখা গেছে, অন্তত ১০ লাখ পরিবারের মধ্যে ইতোমধ্যে খাদ্যসামগ্রী বিতরণ করেছে বিএনপি ও এর অঙ্গসংগঠন। যতদিন এই সংকট চলবে ততদিন সাধ্যমতো গরিব ও দুস্থ মানুষের পাশে দাঁড়াতে নেতাকর্মীদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।

সূত্র জানায়, স্থায়ী কমিটির বৈঠকে একজন সিনিয়র নেতা বলেন, করোনা পরিস্থিতিতে বিএনপিরও এক সুরে কথা বলা উচিত। কারও এমন কোনো কথা বলা উচিত নয়, যাতে জনমনে বিভ্রান্তির সৃষ্টি হয়। এ সময় সবাই একমত হন। কেউ যেন বিতর্কিত কোনো বক্তব্য না দেন সে ব্যাপারেও সবাইকে সজাগ থাকতে বলা হয়। এ সময় ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান বলেন, চলমান এই দুর্যোগে বিএনপি নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ থেকে জনগণের পাশে দাঁড়াতে হবে। তিনি দলের অঙ্গসংগঠন বিশেষ করে সারা দেশে ছাত্রদল, স্বেচ্ছাসেবক দলসহ আরও কয়েকটি অঙ্গসংগঠনের ভূমিকার প্রশংসা করেন। একইভাবে তৃণমূলে বিএনপির তরুণ নেতাদের ভূমিকারও প্রশংসা করেন তিনি।

বৈঠক সূত্র জানায়, রমজানে বাজার পরিস্থিতি কি হয় সে ব্যাপারে বিএনপির দায়িত্বশীল নেতাদের সজাগ থাকতে নির্দেশনা দেয়া হয়। বাসা থেকেই তারাবির নামাজ আদায় করতে বলা হয়। নেতাকর্মীরা যেন বিশেষ প্রয়োজন ছাড়া বাসা থেকে না বের হন সে ব্যাপারেও দায়িত্বশীল নেতাদের নির্দেশনা দেয়া হয়। করোনো পরিস্থিতিতে কেউ যেন কোনো কমিটি নিয়ে কাজ না করেন, সে ব্যাপারেও দিকনির্দেশনা দেয়া হয়।

এদিকে সারা দেশে আসন্ন ঈদুল ফিতরের উপহার সামগ্রী বিতরণ শুরু করেছে বিএনপি। বিএনপি চেয়ারপারসনের মিডিয়া উইংয়ের সদস্য শায়রুল কবির খান বলেন, গণতান্ত্রিক আন্দোলনে শহীদ, গুম ও নির্যাতিত পরিবারের জন্য বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের পক্ষ থেকে ঈদ উপহার দেয়া হচ্ছে। ইতোমধ্যে নেত্রকোনা জেলার আটপাড়া উপজেলা বিএনপি নেতা মরহুম মোজাম্মেল তালুকদারের পরিবারসহ যশোর জেলার শার্শা উপজেলা ও খুলনা মহানগরে থাকা দলের নির্যাতিত পরিবারদের ঈদ উপহার দেয়া হয়েছে।

শুক্রবার বিএনপির সহ-দফতর সম্পাদক তাইফুল ইসলাম টিপু স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, করোনা মোকাবেলায় গোটা বিশ্ব আজ বিপর্যস্ত। বাংলাদেশেও এই ভাইরাসের সংক্রমণ বেড়ে চলেছে। এমন কঠিন সময়ের মধ্যেও পবিত্র রমজান মাসে ঈদুল ফিতরকে সামনে রেখে প্রতি বছরের মতো এই বছরও সমগ্র বাংলাদেশে বিভিন্ন সময়ে গণতান্ত্রিক আন্দোলনে শহীদ, গুম ও নির্যাতিত পরিবারের জন্য বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান ঈদ উপহার দিচ্ছেন। শনিবারও (আজ) দুপুর ১২টায় গুলশান কার্যালয়ে শহীদ, গুম ও নির্যাতিত পরিবারের মাঝে ঈদ উপহার তুলে দেয়া হবে।