ভারতের দিকে ক্ষেপণাস্ত্র ও ড্রোনের বহর তাক করে রেখেছে পাকিস্তান

0
11

ভারত সীমান্তে আক্রমণ এবং নজরদারির উপযোগী ড্রোনের বহর এবং চীনের তৈরি মধ্যম পাল্লার বিমান বিধ্বংসী ক্ষেপণাস্ত্র ইউনিট তাক করে মোতায়েন করেছে পাকিস্তান। ভারতীয় সংবাদমাধ্যমের বরাত দিয়ে এ খবর জানিয়েছে পার্সটুডে।

পাকিস্তানের কয়েকটি সামরিক ঘাঁটি এবং বড় নগরে এলওয়াই-৮০ ভূমি থেকে আকাশে নিক্ষেপযোগ্য ক্ষেপণাস্ত্র বা ‘স্যামের’ পাঁচটি ইউনিট মোতায়েন করা হয়েছে।

পাশাপাশি বিমান প্রতিরক্ষায় ব্যবহৃত নজরদারি রাডার ইউনিট আইবিআইএস-১৫০ মোতায়েন করা হয়েছে। বালাকোটে গতমাসের ২৬ তারিখে ভারতীয় বিমান বাহিনীর হামলার পর এ পদক্ষেপ নেয়া হলো।

সর্বশেষ গোয়েন্দা প্রতিবেদনের বরাত দিয়ে এ খবর দিয়েছে ভারতীয় বেশকিছু গণমাধ্যম। ওইসব প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘স্যামে’র পাশাপাশি চীনের তৈরি রেইনবো সিএইচ-৪ এবং সিএইচ-৫ ড্রোনও মোতায়েন করা হয়েছে। কাশ্মির সীমান্তে গোয়েন্দা তৎপরতা এবং প্রয়োজনে হামলার কারণে এমন উদ্যোগ নিয়েছে পাকিস্তান।

আরও পড়ুন – হঠাৎ কূটনৈতিক পাড়াসহ গোটা রাজধানীতে কড়া নিরাপত্তা

নিউজিল্যান্ডে হামলা ও আগামী ২৬ মার্চ, মহান স্বাধীনতা দিবসকে কেন্দ্র করে কূটনৈতিক পাড়া খ্যাত গুলশান-বনানীসহ গোটা রাজধানীতে নিরাপত্তা জোরদার করা হয়েছে।

রোববার বিকাল থেকে ঢাকা শহরের বিভিন্ন এলাকায় নিরাপত্তায় কড়াকড়ি আরোপ করা হয়।কূটনৈতিক পাড়া গুলশান-বনানী এলাকার নিরাপত্তা বাড়ানোর পাশাপাশি গুলশানে ঢোকার সড়ক বন্ধ করে দিয়েছে আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। বসানো হয়েছে অতিরিক্ত তল্লাশি চৌকি।

প্রতিটি প্রবেশ মুখে নিখুঁত ভাবে তল্লাশি করা হচ্ছে প্রতিটি যানবাহন। এছাড়াও পথচারী কাউকে সন্দেহ হলে তাকেও তল্লাশি করা হচ্ছে।

পুলিশের একাধিক নির্ভরযোগ্য সূত্র জানিয়েছে, নিরাপত্তা শঙ্কার আশংকায় এরই মধ্যে কূটনৈতিক পাড়ায় বসবাসকারী বিদেশিদের সতর্ক থাকতে বলা হয়েছে। পরবর্তী নির্দেশনা না দেওয়া পর্যন্ত তাদেরকে নিজ আবাসস্থল থেকে উন্মুক্ত লোকালয়ে চলাফেরা করতে নিষেধ করা হয়েছে।

ঢাকা মহানগর পুলিশের (ডিএমপি) মিডিয়া এন্ড পাবলিক রিলেশন্স বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) মাসুদুর রহমান বলেন, নিউজিল্যান্ডে হামলার পর এমনিতেই কূটনৈতিক পাড়ায় নিরাপত্তা জোরদার ছিল।

২৬ মার্চ উপলক্ষে সেই নিরাপত্তার সাথে বাড়তি নিরাপত্তা যোগ করা হয়েছে। একই সাথে রাজধানীর অন্যান্য স্থানেও নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদার করা হয়েছে।

পুলিশের পক্ষ থেকে কূটনৈতিকদের নিজ আবাসস্থল থেকে উন্মুক্ত লোকালয়ে চলাফেরায় নিষেধাজ্ঞার বিষয়ে জানতে চাইলে ডিসি মাসুদ বলেন, সতর্ক অবস্থানে থাকতে বলা হয়েছে, যাতে কোনো কিছু না ঘটে। তার মানে এই নয় যে, থ্রেট আছে। সকলকে নিরাপত্তা দেওয়া পুলিশের কাজ।

অন্যদিকে, ডিএমপির ডিপ্লোমেটিক বিভাগের উপ-কমিশনার (ডিসি) হায়াতুল ইসলাম খান জানান, হুমকি থাকায় রোববার দুপুরের পর থেকেই ডিপ্লোমেটিক জোনের নিরাপত্তা বাড়ানো হয়েছে। ঊর্ধ্বতন পর্যায় থেকে জরুরী নির্দেশনা এসেছে- নিশ্ছিদ্র নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে।

তাই আগের তুলনায় অতিরিক্ত নিরাপত্তা জোরদার করার ওপর জোর দেওয়া হয়েছে। আমরা অতিরিক্ত সতর্কতায় রয়েছি। যেকোনো পরিস্থিতি মোকাবেলায় আমাদের প্রস্তুতি রয়েছে।

জানা গেছে, গুলশান ক্লাবের সেক্রেটারির বরাত দিয়ে একটি বার্তা দেওয়া হয় ওই ক্লাবের সদস্যদের। সেখানে বলা হয়, ক্লাবটিতে রেড এলার্ট জারি করা হয়েছে।

আগামী দুই সপ্তাহের মধ্যে এই ক্লাবে নিরাপত্তার কথা মাথায় রেখে সকলকে ব্যবহারে কড়াকড়ি আরোপ করা হয়েছে। উৎসঃ পরিবর্তন