বিএনপি চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা হাবিবুর রহমান হাবিব মন্তব্য করেছেন,স্থানীয় উপজেলা নির্বাচনই একমাত্র শক্তি। যার উপর রাজনৈতিক দলগুলো টিকে থাকা-না থাকা নির্ভর করে।

বেসরকারি একটি টেলিভিশনের টকশো অনুষ্ঠানে বুধবার (৬ ফেব্রুয়ারি) এসে এ মন্তব্য করেন তিনি।

হাবিবুর রহমান হাবিব বলেন, ‘সিইসি প্রধান! তিনি তো এখনও ওনার নিজেন দায়িত্বটাই ভালো করে বুঝেন না। যদি বুঝতেন তাহলে খুলনা, গাজীপুর সিটি নির্বাচনে পুলিশ প্রসাশন তাদের অধীনে থাকার কথা সেখানে পুলিশ প্রশাসনের অধীনে সিইসি থাকে।

তারা এজেন্ট তুলে নিয়ে এসে রাজশাহী থেকে নরসিংদী, খুলনা থেকে পাবনা, গাজীপুর থেকে নারায়ণগঞ্জ আনা হল এই যদি হয় অবস্থা? এজন্য আমরা তখন থেকে বলে আসছি এই সিইসির আওতায় কোনো নির্বাচনে অংশগ্রহণ করা যাবে না, কারণ তিনি নিজের দায়িত্বও বুঝে না।’

তিনি বলেন, এবার একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ঐক্যফ্রন্টের ২৯৯জন প্রার্থী অংশগ্রহণ করেছিলেন, এর মধ্যে যদি দুই চার জন নেতা জিদ করে মাঠে থেকে নির্বাচনে অংগ্রহণ করে থাকেন, তাহলে তাদের মধ্যে আমি একজন ছিলাম। যার কারণে ইচ্ছে করেই আমার উপর আক্রমণ করা হয়েছিল। এটা আপনারা দেখেছেন।

তিনি আরও বলেন, উপজেলা ও স্থানীয় সরকার নির্বাচনই রাজনৈতিক দলকে টিকিয়ে রাখতে পারে। কিন্তু গত বছরের রবিবার (৩০ ডিসেম্বর) যে নির্বাচন হলো এটা কোনো নির্বাচন না।

এটা একটা তামাশা ছাড়া আর কি হতে পারে। এই নির্বাচনের মতো যদি পরের নির্বাচনগুলো হয় তাহলে নির্বাচনে অংশগ্রহণ করার কোনো প্রশ্নই আসে না।

নির্বাচন কমিশনের ভূমিকা নিয়ে বিএনপির উপদেষ্টা হাবিব বলেন, একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন যেমন সুষ্ঠু হয়েছে। ঠিক একই রকম স্থানীয় সরকার নির্বাচনও আপনাদের করতে হবে প্রধান নির্বাচন কমিশনের এমন কথার এক পয়সা মূল্য নেই বলেও দাবি করেন তিনি।

কাউকে খালি হাতে ফিরতে হবে না : অর্থমন্ত্রী

অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, আপনাদের কাউকে খালি হাতে ফিরতে হবে না। সবার ভাল-মন্দ সরকার দেখবে। আমরা সবাই সরকারের অংশ। আমরা দেশের হয়ে কাজ করব। দেশের সমসাময়িক চাহিদা মেটাতে নতুন নতুন চিন্তাধারা নিয়ে কাজ করব।

বৃহস্পতিবার (৭ ফেব্রুয়ারি) রাজধানীর আগারগাঁওয়ে এনইসি সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত বাণিজ্য সংগঠন ও ব্যবসায়ীদের সঙ্গে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

মুস্তফা কামাল বলেন, আমাদের প্রধানমন্ত্রী বেসরকারী খাতের দায়িত্ব সালমান এফ রহমানের হাতে দিয়েছেন। আশা করি, ব্যবসায়ীরাও তাকে সহযোগিতা করবেন।

তিনি বলেন, দেশকে সামনে এগিয়ে নিতে বেসরকারি খাতের বিকল্প নেই। দেশের উন্নয়নে এ খাতের অবদান ৮০ থেকে ৮২ শতাংশ।

তবে বেসরকারি খাতের কিছু চ্যালেঞ্জ আছে সেগুলো আমরা শক্ত হাতে মোকাবেলা করতে চাই। সবার সহযোগিতায় দেশ সামনের দিকে এগিয়ে যাবে। এই গুরুত্বপূর্ণ খাত ধরেই সামনে এগিয়ে যেতে চাই।

এ সময় প্রধানমন্ত্রীর বেসরকারি শিল্প ও বিনিয়োগ উপদেষ্টা সালমান এফ রহমান বলেন, আমরা কিন্তু সবাই পার্ট অব দ্য পার্লামেন্ট। আপনাদের নিয়েই আমরা এগোতে চাই।

দেশকে সামনের দিকে এগিয়ে নিয়ে যেতে বেসরকারি সেক্টর খুবই গুরুত্বপূর্ণ। বেসরকারি খাতের ওপর নির্ভর করে আমরা এগোতে চাই।

দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের বর্তমান পরিস্থিতি পর্যালোচনাসহ ব্যবসা ও শিল্প-বাণিজ্যের অধিকতর অনুকূল পরিবেশ সৃষ্টির লক্ষ্যে করণীয় নির্ধারণের এই আলোচনায় অংশ নেওয়া প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে রয়েছে বাংলাদেশ বিনিয়োগ উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ

বাংলাদেশ ব্যাংক, জাতীয় রাজস্ব বোর্ড, অর্থ বিভাগ, বাংলাদেশ সিকিউরিটিজ অ্যান্ড একচেঞ্জ কমিশন, আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগ, বাংলাদেশ অর্থনৈতিক অঞ্চল কর্তৃপক্ষ, বাংলাদেশ রপ্তানি প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চল কর্তৃপক্ষ, পাবলিক প্রাইভেট পার্টনারশিপ অথরিটি, জাতীয় দক্ষতা উন্নয়ন কর্তৃপক্ষ, এফবিসিসিআই প্রমুখ।

staf.news
admin@news12.us

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *