ড. কামালকে দেশছাড়া করার হুমকি দিলো হেফাজত

হেফাজতে ইসলামের আমীর শাহ আহমদ শফীকে নিয়ে ড. কামাল হোসেনের বক্তব্য কুরুচিপূর্ণ দাবি করে তাকে অবিলম্বে ক্ষমা চাওয়ার আহ্বান জানিয়েছেন সংগঠনটির ঢাকা মহানগরের সেক্রেটারি মাওলানা আবুল হাসানাত আমিনী। অন্যথায় ইসলামপ্রিয় জনতা ড. কামালকে দেশ থেকে বিতাড়িত করবে বলেও হুমকি দেন তিনি। মঙ্গলবার (১৫ জানুয়ারি) এক বিবৃতিতে এসব কথা বলা হয়।



বিবৃতিতে হাসনাত আমিনী বলেন, ড. কামাল হোসেন এক বিবৃতিতে আল্লামা আহমদ শফীকে নারী বিদ্বেষী, স্বাধীনতার চেতনাবিরোধী, সংবিধানবিরোধী, ফতোয়াবাজ, ধর্মের অপব্যাখাকারী আখ্যা দিয়েছেন।

হেফাজত আমীরের বিরুদ্ধে দ্রুত আইনগত ব্যবস্থার কথা বলেছেন। আমরা মনে করি, আল্লামা শাহ আহমদ শফীকে নিয়ে ড. কামাল হোসেনের এই বক্তব্য সম্পূর্ণ শিষ্টাচারবহির্ভূত ও আক্রমণাত্মক। তার বক্তব্যে দেশের ধর্মপ্রাণ মানুষ মর্মাহত হয়েছেন।



বিবৃতিতে হেফাজত ইসলামের নেতা অভিযোগ করেন, ঐক্যফ্রন্টের নামে বিএনপিকে ধ্বংসের দারপ্রান্তে দাঁড় করিয়ে এখন আল্লামা শফীর বক্তব্যকে ইস্যু বানিয়ে দেশে অরাজকতা সৃষ্টির পাঁয়তারা করছেন ড. কামাল। কাজেই হেফাজত আমীরের বিরুদ্ধে নয়, ব্যবস্থা নিতে হলে অরাজকতা সৃষ্টিকারী ড. কামালের বিরুদ্ধেই নিতে হবে।

বিবৃতিতে হাসনাত আমিনী আরো বলেন, ড. কামাল হোসেনের ইতিহাস দেশের জনগণ ভালো করেই জানে। স্বাধীনতার নয় মাস তিনি পাকিস্তানে কাটিয়েছেন। মেয়ে বিয়ে দিয়েছেন একজন বিদেশি ইহুদির কাছে।



জীবনভর কাদিয়ানিদের পক্ষে ওকালতি করেছেন। এখন তিনি দেশের সর্বজনশ্রদ্ধেয় আলেমের চরিত্র হননে মরিয়া হয়ে উঠেছেন। হাসনাত আমিনী বলেন, বক্তব্য প্রত্যাহার করে অবিলম্বে ক্ষমা না চাইলে ইসলামপ্রিয় জনতা ড. কামালকে দেশ থেকে বিতাড়িত করবে।

ফখরুল এখন বেপরোয়া চালক: কাদের
বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের কড়া সমালোচনা করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, বিএনপি মহাসচিব বেপরোয়া চালক হয়ে গেছেন। বেপরোয়া চালক কখন যে কী করে, ‘অ্যাকসিডেন্ট’ ঘটান, তার ঠিক নেই। সে জন্য সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে।



বুধবার দুপুরে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগ আয়োজিত এক বর্ধিতসভায় তিনি এ কথা বলেন।



আন্দোলন-সংগ্রাম ও একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপিকে সঠিক নেতৃত্ব দিতে দলটির মহাসচিব ব্যর্থ বলে মূল্যায়ন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের। আর এ কারণে মির্জা ফখরুলের বিএনপি থেকে পদত্যাগ করা উচিত বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

বিএনপি মহাসচিবের উদ্দেশে সেতুমন্ত্রী বলেন, গত ১০ বছরে তিনি (ফখরুল) কোনো আন্দোলন করতে পারেননি। নির্বাচনে পরাজিত হয়েছেন। এ ব্যর্থতার কারণে বিএনপি ও পদ থেকে তার পদত্যাগ করা উচিত।



‘নির্বাচনে কারচুপির দায়ে ওবায়দুল কাদেরের উচিত স্টেডিয়ামে দাঁড়িয়ে জাতির কাছে ক্ষমা চাওয়া’-বিএনপি মহাসচিবের এমন মন্তব্যের একদিন পর তার উদ্দেশে এমন মন্তব্য করলেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক।

নির্বাচনে জালভোটসহ ব্যাপক অনিয়ম হয়েছে বলে বেসরকারি সংস্থা টিআইবির প্রতিবেদন প্রকাশ প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, টিআইবি এখন রূপকথার কাহিনী শোনাচ্ছে। নির্বাচনের সময় তারা কোনো ত্রুটি ধরতে পারেনি। এর জবাব জনগণ দেবে।

মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাটের সভাপতিত্বে বর্ধিতসভায় উপস্থিত ছিলেন যুবলীগ সভাপতি ওমর ফারুক চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক হারুন অর রশীদ প্রমুখ।

সংরক্ষিত নারী আসনে জাপার ফরম বিক্রি শুরুতে বিলম্ব ”””’



নির্ধারিত সময়ের প্রায় ২ ঘণ্টা পর সংরক্ষিত নারী আসনে জাতীয় পার্টির (জাপা) মনোনয়ন ফরম বিক্রি শুরু হয়েছে। বুধবার সকাল ১০টায় ফরম বিক্রির কার্যক্রম শুরু হওয়ার কথা থাকলেও দুপুর ১২টায় জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের বনানী কার্যালয় থেকে মনোনয়ন ফরম বিক্রি শুরু হয়।

ফরম বিক্রির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন পার্টির মহাসচিব মশিউর রহমান রাঙ্গা। এসময় দলের অন্যান্য নেতারাও উপস্থিত ছিলেন।



মঙ্গলবার (১৫ জানুয়ারি) পার্টির পক্ষ থেকে জানানো হয় বুধবার সকাল ১০টায় এ কার্যক্রম শুরু হবে।

একাদশ জাতীয় সংসদে জাতীয় পার্টির মনোনীত সংরক্ষিত নারী আসনে চারজনকে গত ৯ জানুয়ারী মনোনয়ন দিয়েছেন সাবেক রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। কিন্তু আজ বুধবার আবার ওই পদেই দলীয় মনোনয়ন ফরম বিক্রির উদ্যোগ নিয়েছে দলটি।



ফরম বিক্রির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করে জাপা মহাসচিব বলেন, ‘সংসদে আমরা বিরোধীদলের ভূমিকায় থাকব। তীর্যক ভাষায় দেশের মানুষের কথা তুলে ধরব। সংসদে গণমানুষের কথা তুলে ধরা হবে। শক্ত বিরোধীদলের ভূমিকা পালন করব আমরা।’
আগের চারজনকে মনোনয়ন দেয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে রাঙ্গা বলেন, ‘চেয়ারম্যান চিঠি স্পিকারকে দিয়েছেন। পরে আবার উইথড্র (প্রত্যাহার) করেছেন। সংবিধান অনুযায়ী মনোনয়ন জমা দিতে হবে নির্বাচন কমিশনে। পদ্ধতিগত সমস্যা ছিল, তাই নতুন করে ফরম বিক্রি শুরু হয়েছে।’ দুপুর ১২টা পর্যন্ত পাঁচজন মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন বলে তিনি জানান।



জাপা সূত্র জানিয়েছে, মনোনয়ন ফরম উত্তোলন করা যাবে আগামী ২২ জানুয়ারি পর্যন্ত। আর প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত মনোনয়নপত্র বিতরণ করা হবে। ১০ হাজার টাকা দলীয় ফান্ডে জমা দিয়ে সংগ্রহ করা যাচ্ছে মনোনয়ন ফরম।

এর আগে গত ৯ জানুয়ারি সংরক্ষিত নারী আসনে চারজনকে মনোনয়ন দেয় জাপা। দলের চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ স্বাক্ষরিত ওই মনোনয়নপত্রটি পাঠানো হয় জাতীয় সংসদের স্পিকারের কাছে। জাপার মনোনীতরা হচ্ছেন পারভীন ওসমান (নারায়ণগঞ্জ), ডা. শাহীনা আক্তার (কুঁড়িগ্রাম), নাজমা আখতার (ফেনী) ও মনিকা আলম (ঝিনাইদহ)। তবে পদ্ধতিগত ক্রুটি দেখিয়ে দলটি পরে আবারও মনোনয়ন ফরম বিক্রির সিদ্ধান্ত নেয়।

রূপকথার কাহিনী শোনাচ্ছে টিআইবি: কাদের

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বেপরোয়া চালক হয়ে গেছেন। বেপরোয়া চালক কখন যে কী করে, ‘অ্যাকসিডেন্ট’ ঘটান। সেজন্য সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে।



এ কথা বলেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। বুধবার (১৬ জানুয়ারি) দুপুরে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগ আয়োজিত বর্ধিত সভা শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি এ কথা বলেন।

‘নির্বাচনের কারচুপির দায়ে ওবায়দুল কাদেরের উচিত স্টেডিয়ামে দাঁড়িয়ে জাতির কাছে ক্ষমা চাওয়া’- বিএনপি মহাসচিবের এমন মন্তব্যের জবাবে সেতুমন্ত্রী বলেন, গত ১০ বছরে তিনি (ফখরুল) কোনো আন্দোলন করতে পারেননি। নির্বাচনে পরাজিত হয়েছেন। এ ব্যর্থতার কারণে বিএনপি থেকে তার পদত্যাগ করা উচিত।



নির্বাচনে জালভোটসহ ব্যাপক অনিয়ম হয়েছে বলে বেসরকারি সংস্থা টিআইবির প্রতিবেদন প্রকাশ প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, টিআইবি এখন রূপকথার কাহিনী শোনাচ্ছে। নির্বাচনের সময় তারা কোনো ত্রুটি ধরতে পারেনি। এর জবাব জনগণ দেবে।
ফখরুল এখন বেপরোয়া চালক: কাদের”””

বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরের কড়া সমালোচনা করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের। তিনি বলেন, বিএনপি মহাসচিব বেপরোয়া চালক হয়ে গেছেন। বেপরোয়া চালক কখন যে কী করে, ‘অ্যাকসিডেন্ট’ ঘটান, তার ঠিক নেই। সে জন্য সবাইকে সতর্ক থাকতে হবে।



বুধবার দুপুরে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে ঢাকা মহানগর দক্ষিণ যুবলীগ আয়োজিত এক বর্ধিতসভায় তিনি এ কথা বলেন।

আন্দোলন-সংগ্রাম ও একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে বিএনপিকে সঠিক নেতৃত্ব দিতে দলটির মহাসচিব ব্যর্থ বলে মূল্যায়ন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের। আর এ কারণে মির্জা ফখরুলের বিএনপি থেকে পদত্যাগ করা উচিত বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

বিএনপি মহাসচিবের উদ্দেশে সেতুমন্ত্রী বলেন, গত ১০ বছরে তিনি (ফখরুল) কোনো আন্দোলন করতে পারেননি। নির্বাচনে পরাজিত হয়েছেন। এ ব্যর্থতার কারণে বিএনপি ও পদ থেকে তার পদত্যাগ করা উচিত।



‘নির্বাচনে কারচুপির দায়ে ওবায়দুল কাদেরের উচিত স্টেডিয়ামে দাঁড়িয়ে জাতির কাছে ক্ষমা চাওয়া’-বিএনপি মহাসচিবের এমন মন্তব্যের একদিন পর তার উদ্দেশে এমন মন্তব্য করলেন আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক।

নির্বাচনে জালভোটসহ ব্যাপক অনিয়ম হয়েছে বলে বেসরকারি সংস্থা টিআইবির প্রতিবেদন প্রকাশ প্রসঙ্গে ওবায়দুল কাদের বলেন, টিআইবি এখন রূপকথার কাহিনী শোনাচ্ছে। নির্বাচনের সময় তারা কোনো ত্রুটি ধরতে পারেনি। এর জবাব জনগণ দেবে।

মহানগর দক্ষিণ যুবলীগের সভাপতি ইসমাইল চৌধুরী সম্রাটের সভাপতিত্বে বর্ধিতসভায় উপস্থিত ছিলেন যুবলীগ সভাপতি ওমর ফারুক চৌধুরী, সাধারণ সম্পাদক হারুন অর রশীদ প্রমুখ।

সংরক্ষিত নারী আসনে জাপার ফরম বিক্রি শুরুতে বিলম্ব ”””’



নির্ধারিত সময়ের প্রায় ২ ঘণ্টা পর সংরক্ষিত নারী আসনে জাতীয় পার্টির (জাপা) মনোনয়ন ফরম বিক্রি শুরু হয়েছে। বুধবার সকাল ১০টায় ফরম বিক্রির কার্যক্রম শুরু হওয়ার কথা থাকলেও দুপুর ১২টায় জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যানের বনানী কার্যালয় থেকে মনোনয়ন ফরম বিক্রি শুরু হয়।

ফরম বিক্রির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন পার্টির মহাসচিব মশিউর রহমান রাঙ্গা। এসময় দলের অন্যান্য নেতারাও উপস্থিত ছিলেন।



মঙ্গলবার (১৫ জানুয়ারি) পার্টির পক্ষ থেকে জানানো হয় বুধবার সকাল ১০টায় এ কার্যক্রম শুরু হবে।

একাদশ জাতীয় সংসদে জাতীয় পার্টির মনোনীত সংরক্ষিত নারী আসনে চারজনকে গত ৯ জানুয়ারী মনোনয়ন দিয়েছেন সাবেক রাষ্ট্রপতি ও জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ। কিন্তু আজ বুধবার আবার ওই পদেই দলীয় মনোনয়ন ফরম বিক্রির উদ্যোগ নিয়েছে দলটি।



ফরম বিক্রির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করে জাপা মহাসচিব বলেন, ‘সংসদে আমরা বিরোধীদলের ভূমিকায় থাকব। তীর্যক ভাষায় দেশের মানুষের কথা তুলে ধরব। সংসদে গণমানুষের কথা তুলে ধরা হবে। শক্ত বিরোধীদলের ভূমিকা পালন করব আমরা।’
আগের চারজনকে মনোনয়ন দেয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে রাঙ্গা বলেন, ‘চেয়ারম্যান চিঠি স্পিকারকে দিয়েছেন। পরে আবার উইথড্র (প্রত্যাহার) করেছেন। সংবিধান অনুযায়ী মনোনয়ন জমা দিতে হবে নির্বাচন কমিশনে। পদ্ধতিগত সমস্যা ছিল, তাই নতুন করে ফরম বিক্রি শুরু হয়েছে।’ দুপুর ১২টা পর্যন্ত পাঁচজন মনোনয়ন ফরম সংগ্রহ করেছেন বলে তিনি জানান।



জাপা সূত্র জানিয়েছে, মনোনয়ন ফরম উত্তোলন করা যাবে আগামী ২২ জানুয়ারি পর্যন্ত। আর প্রতিদিন সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৪টা পর্যন্ত মনোনয়নপত্র বিতরণ করা হবে। ১০ হাজার টাকা দলীয় ফান্ডে জমা দিয়ে সংগ্রহ করা যাচ্ছে মনোনয়ন ফরম।

এর আগে গত ৯ জানুয়ারি সংরক্ষিত নারী আসনে চারজনকে মনোনয়ন দেয় জাপা। দলের চেয়ারম্যান হুসেইন মুহম্মদ এরশাদ স্বাক্ষরিত ওই মনোনয়নপত্রটি পাঠানো হয় জাতীয় সংসদের স্পিকারের কাছে। জাপার মনোনীতরা হচ্ছেন পারভীন ওসমান (নারায়ণগঞ্জ), ডা. শাহীনা আক্তার (কুঁড়িগ্রাম), নাজমা আখতার (ফেনী) ও মনিকা আলম (ঝিনাইদহ)। তবে পদ্ধতিগত ক্রুটি দেখিয়ে দলটি পরে আবারও মনোনয়ন ফরম বিক্রির সিদ্ধান্ত নেয়।

‘আহমদ শফীকে প্রকাশ্যে ক্ষমা চাইতে হবে’

হেফাজতে ইসলামের আমির শাহ আহমদ শফীর মেয়েদের লেখাপড়ার বিরুদ্ধে অবৈধ ফ‌তোয়ার প্রতিবাদ জানিয়ে তাকে প্রকাশ্যে ক্ষমা চাইকে হবে বলে দাবি করেছেন নারী শ্রমিক নেতারা।



মঙ্গলবার ১৫ জানুয়ারি জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে আয়োজিত মানববন্ধনে তারা এ দাবি জানান।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, জ্ঞান অর্জন করা প্রত্যেক নর-নারীর জন্য ফরজ। কিন্তু আল্লামা শফী নারীদের পড়াশোনা না করার ফতোয়া দিয়েছেন। তা নিঃসন্দেহে হাদিস বিরোধী বক্তব্য।



তারা আরও বলেন, বাংলাদেশের সরকার দলীয় নেতা নারী, বিরোধীদলেও নারী নেতা আছেন। হাজার হাজার শ্রমিক-কর্মচারী নারী। নারীরা শিক্ষিত না হলে দেশে উন্নয়নের বাধা হয়ে দাঁড়াবে। এমত অবস্থায় হেফাজতের আমির শফী নারীদের পড়াশোনা না করার ফতোয়া দিয়েছেন। এটা নিঃসন্দেহে একটি দেশের উন্নয়নের ধারা ব্যাহত করার ফতোয়া। তাই, অনতিবিলম্বে আল্লামা শফীকে তার বক্তব্য প্রত্যাহার করে প্রকাশ্যে ক্ষমা চাইতে হবে।



এসময় তারা দেশের বিভিন্ন জায়গায় ধর্ষণ ও খুনের বিচারেরও দাবি জানান।

শ্রমিক নেত্রী লাভলী আক্তারের সভাপতিত্বে মানববন্ধনে শ্রমিক নেতা আবুল হো‌সেন ও বি‌ভিন্ন শ্রমিক সংগঠনের নেতারা উপস্থিত ছিলেন।

একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের পর গঠিত নতুন মন্ত্রিসভায় স্থান হয়নি আওয়ামী লীগের শরিক দলের কারো। পূর্বের দুই সরকারে শরিকদের অল্প-বিস্তর অংশগ্রহণ থাকলেও এবার শতভাগ আওয়ামী মন্ত্রিসভা গঠন করা হয়েছে। এতে স্বভাবতই মনোক্ষুণ্ন হয়েছেন তারা। মহাজোট ও ১৪ দলের শরিক অনেকেই ভাবছেন আওয়ামী লীগ এখন আর শরিকদের প্রয়োজন আছে মনে করছে না।



মন্ত্রিসভা গঠনের পরপর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরসহ দলের সিনিয়র নেতাদের বক্তব্য থেকে বোঝা যাচ্ছিলো আপাতত মন্ত্রিসভায় আওয়ামী লীগের বাইরে আর কারো স্থান হচ্ছে না।

সর্বশেষ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যখন শরিক দলগুলোকে আওয়ামী নির্ভরতা কমিয়ে নিজের পায়ে দাঁড়ানোর পরামর্শ দিলেন তখন শরিক দলগুলোর হতাশা আরও প্রকট হলো। এখন তারা বিভিন্ন গণমাধ্যমেও হতাশা প্রকাশ করতে শুরু করেছেন।

অন্যদিকে ১৪ দলের সমন্বয়ক ও আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর সদস্য মোহাম্মদ নাসিম বলেছেন, প্রধানমন্ত্রীর ইচ্ছা সরকার ও বিরোধী দলে থাকুক মুক্তিযুদ্ধের পক্ষ শক্তি। তাই সরকারে না থেকে সংসদের ভেতরে ও বাইরে ভূমিকা রাখতে পারে শরিকেরা। আওয়ামী লীগের ওপর নির্ভরতা কমিয়ে তাদের সাংগঠনিক শক্তিও বাড়াতে পারে।



তার এই বক্তব্যের পর শরিকরা মনে করছেন, আগামী নির্বাচনেও হয়তো তারা জোটবদ্ধ হয়ে নির্বাচন করতে পারবেন না। তাই শরিক দলগুলোর সামনেও নিজেদের ঘর গোছানো ছাড়া বিকল্প কিছু নেই। ইতিমধ্যে ওয়ার্কার্স পার্টি পলিটব্যুরোর এবং জাসদ জাতীয় নির্বাহী কমিটির সভা ডেকেছে। এ মাসের শেষভাগে এবং আগামী মাসের শুরুতে এসব সভা হওয়ার কথা রয়েছে।

এ প্রসঙ্গে কিছুটা অভিমান নিয়েই ওয়ার্কার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন বলেন, ‘আমরা যাঁরা রাজনৈতিক দল করি, তাঁরা নিজের পায়ে দাঁড়িয়েই রাজনীতি করি। তাই প্রধানমন্ত্রী কী বোঝাতে চেয়েছেন, তা ঠিক পরিষ্কার নয়।’



রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা মনে করছেন, সরকার শরিকদের ভেতর থেকেই একটি অনুগত এবং বাহ্যত সক্রিয় বিরোধী দল তৈরি করার চেষ্টা করছে। যাদেরকে বিএনপি ও তার নেতৃত্বাধীন জোটের বিকল্প হিসেবে উপস্থাপন করা যায়। এতে সরকার ও তার শরিক উভয়েই লাভবান হবে।

সরকারের এই পরিকল্পনা অনুযায়ী সামনের দিনের কার্যক্রম ঢেলে সাজাচ্ছে আওয়ামী লীগের শরিকরা। যদিও ক্ষমতার অংশিদার হতে না পারার বেদনা প্রকাশ পাচ্ছে তাদের কথা, কাজে ও আচরণে।



কামালের বিবৃতিতে আল্লামা শফীকে বলা হলো, ‘নারীবিদ্বেষী, স্বাধীনতার চেতনাবিরোধী, সংবিধানবিরোধী ও ফতোয়াবাজ’

গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মোহসিন মন্টুর এক যৌথ বিবৃতিতে হেফাজতে ইসলামের আমীর আল্লামা শাহ আহমদ শফী সম্পর্কে বলা হলো-নারী বিদ্বেষী, স্বাধীনতার চেতনাবিরোধী, সংবিধানবিরোধী ও ফতোয়াবাজ।



সোমবার (১৪ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে গণফোরামের এই দুই প্রধান নেতা আল্লামা আহদ শফীর ‘ নারী শিক্ষাবিরোধী বক্তব্যে’র তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন।

বিবৃতিতে কামাল হোসেন ও মোস্তফা মোহসিন মন্টু বলেন, ‘আহমদ শফী নারী বিদ্বেষী, স্বাধীনতার চেতনাবিরোধী ও সংবিধানবিরোধী। এই ফতোয়াবাজ ব্যক্তির বিরুদ্ধে দ্রুত আইনগত ব্যবস্থা নিতে সরকারের কাছে জোর দাবি জানাচ্ছি।’



বিবৃতিতে তারা আরো বলেন, ‘আহমদ শফী ধর্মের অপব্যাখ্যা করে মনগড়া ফতোয়া দিয়ে দেশ ও সমাজকে আলো থেকে অন্ধকারে নিতে চান।’ বিবৃতিতে আহমদ শফীর নারী শিক্ষাবিরোধী ফতোয়ার বিরুদ্ধে সোচ্চার হওয়ার জন্য দেশবাসীর প্রতিও উদাত্ত আহ্বান জানানো হয়েছে।

গণফোরাম সভাপতি ড. কামাল হোসেন ও সাধারণ সম্পাদক মোস্তফা মোহসিন মন্টুর এক যৌথ বিবৃতিতে হেফাজতে ইসলামের আমীর আল্লামা শাহ আহমদ শফী সম্পর্কে বলা হলো-নারী বিদ্বেষী, স্বাধীনতার চেতনাবিরোধী, সংবিধানবিরোধী ও ফতোয়াবাজ।

সোমবার (১৪ জানুয়ারি) সন্ধ্যায় গণমাধ্যমে পাঠানো এক বিবৃতিতে গণফোরামের এই দুই প্রধান নেতা আল্লামা আহদ শফীর ‘ নারী শিক্ষাবিরোধী বক্তব্যে’র তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন।



বিবৃতিতে কামাল হোসেন ও মোস্তফা মোহসিন মন্টু বলেন, ‘আহমদ শফী নারী বিদ্বেষী, স্বাধীনতার চেতনাবিরোধী ও সংবিধানবিরোধী। এই ফতোয়াবাজ ব্যক্তির বিরুদ্ধে দ্রুত আইনগত ব্যবস্থা নিতে সরকারের কাছে জোর দাবি জানাচ্ছি।’

বিবৃতিতে তারা আরো বলেন, ‘আহমদ শফী ধর্মের অপব্যাখ্যা করে মনগড়া ফতোয়া দিয়ে দেশ ও সমাজকে আলো থেকে অন্ধকারে নিতে চান।’ বিবৃতিতে আহমদ শফীর নারী শিক্ষাবিরোধী ফতোয়ার বিরুদ্ধে সোচ্চার হওয়ার জন্য দেশবাসীর প্রতিও উদাত্ত আহ্বান জানানো হয়েছে।

সুত্রঃ ‌ইসলাম টাইমস

একটি মহল আমাকে বিতর্কিত করতে মরিয়া হয়ে মাঠে নেমেছে: আল্লামা শফী

কারো বক্তব্যকে বিকৃত করে প্রচার না করতে এবার গণমাধ্যমের প্রতি অনুরোধ জানিয়েছেন হেফাজতে ইসলামের আমির শায়খুল ইসলাম আল্লামা শাহ আহমদ শফী। সাধারণ মানুষের মাঝে বিভ্রান্তি ও ভুল বুঝাবুঝির সৃষ্টি হয় এমন সংবাদ পরিবেশন থেকে বিরত থাকার অনুরোধ জানিয়ে রোববার রাতে হেফাজতের কার্যালয় থেকে বিবৃতি দেয়া হয়।



বিবৃতিতে তিনি বলেন, কারো বক্তব্যকে ব্যাখ্যা দিতে হলে আপনাকে তাঁর কথা বুঝতে হবে। অনুধাবন করতে হবে। না বুঝে নিজের মতো করে ব্যাখ্যা দাঁড় করানো একধরণের অপরাধ। আর খন্ডিত বক্তব্যকে নিজেদের স্বার্থসিদ্ধির উদ্দেশ্যে ব্যবহার করা আরো বড় অপরাধ। কোন কিছু লিখতে চাইলে সুস্থ মস্তিষ্কে চিন্তাশীল হয়ে সঠিক কথাটি লিখবেন।



বিবৃতিতে আল্লামা শফী আরও বলেন, একটি মহল আমাকে বিতর্কিত করতে মরিয়া হয়ে মাঠে নেমেছে। আমাকে নারী বিদ্বেষী, নারী শিক্ষা বিরোধী হিসেবে উপস্থাপন করার অপপ্রয়াস চালাচ্ছে। আমি এসব কথার জবাব দিয়েছি। জবাবটি ভালোভাবে পড়ুন এবং বুঝার চেষ্টা করুন। মিথ্যাচার করবেন না।



তিনি বলেন, আমি আবারও বলছি, নারীদের জন্যে নিরাপদ পরিবেশে শিক্ষার ব্যবস্থা করুন এবং তাদের জীবন ও ইজ্জতের নিরাপত্তা নিশ্চিত করুন। কেউ কারো কন্যাকে অনিরাপদ পরিবেশের দিকে ঠেলে দিতে পারে না। কারণ, দৈনিক পত্রিকা খুললেই প্রতিদিন চোখে পড়ছে কোথাও না কোথাও কোন নারীকে ধর্ষণ করা হয়েছে অথবা খুন করা হয়েছে। নৈতিকতা অর্জন না হলে ধর্ষণ, খুন ও উত্যক্তকরণ বন্ধ হবে না। নারীর প্রতি বৈষম্যতা দূর হবে না। ইসলামই ফিরিয়ে দিয়েছে নারীর প্রকৃত সম্মান। কিন্তু কেউ কেউ আমার খণ্ডিত বক্তব্যকে ভুলভাবে প্রচার করে মানুষের মাঝে বিভ্রান্তি সৃষ্টির পাঁয়তারা চালাচ্ছে।



সংবাদ মাধ্যমের উদ্দেশে হেফাজত আমির বলেন, এসব হীন কাজ করবেন না। কারো বিরুদ্ধে মিথ্যাচার করবেন না। আমার কথার সারাংশ হলো উচ্চশিক্ষা কিংবা কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে পড়াতে চাইলে বোরকা গায়ে দিয়ে পড়বে এবং তাদের শিক্ষকও মহিলা হতে হবে বলে তিনি তার বিবৃতিতে এমনটা দাবি করেন।

শীর্ষকাগজ/

স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতাকে রাস্তায় ফেলে পেটাল পুলিশ (ভিডিও)

ভোলার বাংলা স্কুল মোড়ে মোটরসাইকেল কাগজ পরীক্ষার সময় সামান্য বিষয় নিয়ে এক স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতাকে প্রকাশ্যে পেটাল এক পুলিশ কর্মকর্তা। এমন ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে।

আহত আওলাদ হোসেন (৩২) বোরহানউদ্দিন উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগ যুগ্ম সম্পাদক। রোববার বিকালে ভোলার বাংলাস্কুল মোড়ে এ ঘটনা ঘটে। এর জেরে বোরহানউদ্দিন উপজেলা আওয়ামী লীগ ও স্বেচ্ছাসেবক লীগ নেতৃবৃন্দ পুলিশ সুপাররের দফতরে অভিযোগ করেন। তারা অভিযুক্ত এএসআই শাহে আলমের শাস্তি দাবি করেন।



ভিডিওতে দেখা যায়, পুলিশের এএসআই মোটরসাইকেলে থাকা ব্যক্তিকে টেনে হিঁচড়ে নামিয়ে আনেন। পড়ে তাকে কিল-ঘুষি মেরে মাটিতে ফেলেন। এরপর তার বুকের ওপর লাথি দিতে থাকেন। দুই মিনিট ৪৭ সেকেন্ডের ভিডিওটি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়ে যায়।

এদিকে আহত আওলাদ ও তার ভাই মো. আব্বাস উদ্দিন জানান, আওলাদ ও তার এক বন্ধু ছাত্রলীগ নেতা দুটি আলাদা মোটরসাইকেল যোগে বোরহানউদ্দিন থেকে ভোলা জেলা শহরে আসেন।



শহরের বাংলা স্কুল মোড়ে পুলিশ মোটরসাইকেল চেকিংকালে কাগজপত্র ঠিক থাকায় আওলাদকে ছেড়ে দেন। কিন্তু তার অপর সঙ্গীর হেলমেট না থাকাসহ কাগজে কিছু অসঙ্গতির জন্য মোটরসাইকেল আটকে রাখে।



ওই সময় আওলাদ অনুরোধ করতেই ক্ষিপ্ত হয়ে ওঠেন এএসআই শাহে আলম। এক কথা দু কথায় এএসআই শাহে আলম আওলাদের ওপর চড়াও হন। গলার মাফলার ধরে টেনে মোটরসাইকেল থেকে ফেলে দিয়ে লাথি মারতে থাকেন। স্থানীয়রা এমন দৃশ্য দেখে হতবাক হন।

এ সময় বেশ কয়েকজন পথচারী ওই দৃশ্য মোবাইলে ভিডিওতে ধারণ করেন। যা ইতিমধ্যে ফেসবুকে ভাইরাল হয়ে গিয়েছে। পরে অবশ্য এএসআই শাহে আলম এমন ঘটনার জন্য দুঃখ প্রকাশ করেন।

ভোলা থানার ওসি মো. ছগির মিয়া বলেন, ভুল বোঝাবুঝি হয়েছিল। বোরহানউদ্দিন উপজেলা আওয়ামী লীগ নেতা এহছানুল হক কিশোর, সাবেক ছাত্রলীগ সভাপতি বেলায়েত হোসেনসহ নেতৃবৃন্দকে নিয়ে সমঝোতা করে দেয়া হয়েছে।



রাত সাড়ে ৭টায় এ রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত থানায় সমঝোতার চেষ্টা করছিলেন ওসি ছগির মিয়া।

ভিডিও:



সুত্রঃ https://www.jugantor.com/…/ভোলায়-স্বেচ্ছাসেবক-লীগ-…

সুত্রঃ www.pbd.news/whole-country/88836

সুত্রঃ www.bangla.24livenewspaper.com › বাংলাদেশ

ছাত্রলীগকর্মী সারোয়ারের ঘাতক চালককে গ্রেফতারে আল্টিমেটাম, অবরোধ

সিলেট সরকারি কলেজের মেধাবী শিক্ষার্থী ও ছাত্রলীগ কর্মী সারোয়ার খানকে বাস চাপা দিয়ে হত্যাকারী ঘাতক হানিফ পরিবহনের চালকে গ্রেফতারে ২৪ ঘন্টার আল্টিমেটাম দেয়া হয়েছে।



রোববার দুপুরে সিলেট শহরতলীর মেজরটিলা ইসলামপুরে সিলেট-তামাবিল সড়ক অবরোধ করে আয়োজিত মানববন্ধন ও সমাবেশ থেকে এ আল্টিমেটাম দেয়া হয়।



বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী ও এলাকাবাসীর উদ্যোগে এ কর্মসূচি পালিত হয়। বেঁধে দেয়া সময়ের মধ্যে চালককে গ্রেফতার করা না হলে কঠোর কর্মসূচি ঘোষণারও হুমকি দেন তারা।

গত বৃহস্পতিবার শহরতলীর ইসলামপুরে পর্যটকবাহী হানিফ পরিবহনের একটি বাস চাপা দিলে মোটর সাইকেল আরোহী সারোয়ার খান ঘটনাস্থলেই নিহত হয়। গুরুতর আহত হয় আরেক ছাত্রলীগকর্মী অনিক। দুর্ঘটনার পরই ঘাতক বাস চালক পালিয়ে যায়।



এর প্রতিবাদে রোববার দুপুর ১২টা থেকে দেড়টা পর্যন্ত সিলেট-তামাবিল সড়ক অবরোধ করে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেন স্থানীয় বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের শিক্ষার্থী ও এলাকার লোকজন।

মানববন্ধন পরবর্তী সমাবেশে ঘাতক বাস চালককে ২৪ ঘন্টার মধ্যে গ্রেফতারের আল্টিমেটাম দেয়া হয়। এছাড়াও নিহত সারোয়ার খানের পরিবারকে ও আহত অনিককে ক্ষতিপূরণ প্রদান এবং ইসলামপুর এলাকার শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানগুলোর সামনে স্প্রিডব্রেকার নির্মাণের দাবি জানানো হয়।



মহানগর যুবলীগ নেতা জাহাঙ্গীর আলমের সভাপতিত্বে ও সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কামরুল ইসলামের পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন- স্কলার্সহোম স্কুল এন্ড কলেজের অধ্যক্ষ আবদুল হাই জামালী, আল আমিন জামেয়া ইসলামীয়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জসিম উদ্দিন, হযরত শাহজালাল (রহ.) উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সুরঞ্জিত দাস, মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাধারণ সম্পাদক দেবাংশু দাস মিঠু, ব্যবসায়ী মোয়াক্কির আহদ সিদ্দিকী, মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সহ সভাপতি এম এ সামাদ, জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের আন্তর্জাতিক বিষয়ক সম্পাদক শাহেদ আহমদ, সহ নাট্য সম্পাদক ফাহাদ আহমদ রুমেল, জেলা যুবলীগের অর্থ সম্পাদক অপু তালুকদার, মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক ওয়ালীউল্লাহ বদরুল, সিলেট জেলা ছাত্রলীগের সাবেক যুগ্ম সম্পাদক মিঠু তালুকদার, সঞ্জয় চৌধুরী, এমসি কলেজ ছাত্রলীগ নেতা দেলোয়ার হোসেন, হোসেন আহমদ, সরকারি কলেজ ছাত্রলীগ নেতা নাজমুল ইসলাম, জিলহাজ চৌধুরী প্রমুখ।



মানববন্ধন কর্মসূচিতে একাত্মতা পোষন করে অংশগ্রহণ করেন এমসি বিশ^বিদ্যালয় কলেজ ছাত্রলীগ, সরকারি কলেজ ছাত্রলীগ, শাহপরাণ থানা ছাত্রলীগ, খাদিমপাড়া ইউনিয়ন স্বেচ্ছাসেবক লীগ, সিলেট এমসি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ, সরকারি কলেজ, স্কলার্সহোম স্কুল এন্ড কলেজ, আল আমিন জামেয়া ইসলামিয়া উচ্চ বিদ্যালয়, শাহজালাল উচ্চ বিদ্যালয়, শাহপরাণ উচ্চ বিদ্যালয়, দেবপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক, শিক্ষার্থী ও এলাকার সাধারণ মানুষ।

দুর্নীতি ও অনিয়ম জানাতে নিজের ফোন নম্বর দিলেন পলক

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক নাটোরের সিংড়া উপজেলার যে কোন অনিয়ম ও দুর্নীতির তথ্য জানিয়ে দুর্নীতি নির্মূলে সহায়তা করার জন্য সকলকে নিজের সেলফোনের নম্বর (০১৭৬৬৬৯৯৯৯৯) দিয়েছেন ।

পরপর দুইবার একই মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পাওয়া তরুণ এ মন্ত্রীসভার সদস্য শনিবার বিকেলে সিংড়া কোর্ট মাঠে আয়োজিত এক নাগরিক সভা ও মতবিনিময়ে অংশ নিয়ে এসব কথা বলেন।



উপজেলা আওয়ামী লীগ সভাপতি ওহিদুর রহমান শেখের সভাপতিত্বে অনান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন পৌর আওয়ামী লীগ সভাপতি ও উপজেলা চেয়ারম্যান শফিকুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক ও মেয়র জান্নাতুল ফেরদৌস, সিংড়ার বিভিন্ন ইউনিয়নের চেয়ারম্যান, দলীয় সভাপতি-সম্পাদকসহ দলের বিভিন্ন পর্যায়ের নেতৃবৃন্দ।

এর আগে পুনরায় প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দায়িত্ব পাওয়ায় জুনাইদ আহমেদ পলককে ফুল দিয়ে শুভেচ্ছা জানায় বিভিন্ন শ্রেণিপেশার মানুষ।



সিংড়াবাসীর উদ্দেশ্যে পলক বলেন, ‘আমি একা। অনেক কাজ আছে, একা পারবো না। আপনাদের সহযোগিতা লাগবে। আপনাদের নিয়ে দুর্নীতি নির্মূলে কাজ করতে চাই।’

সিংড়ার সাব-রেজিস্ট্রি অফিস ও পরিবহন সেক্টরে ব্যাপক চাঁদাবাজী ও অর্থ আদায় হয়, মন্তব্য করে পলক বলেন, ‘সিংড়ার সাব-রেজিস্ট্রি অফিস থেকে বিগত এক দশকে একটি টাকাও নিইনি। তবে এক দিনের জন্যও টাকা তোলা বন্ধ করেনি অফিসকেন্দ্রিক চক্রটি।



কোথায় যায় সেই টাকা? পরিবহন সেক্টরে ভ্যান চালক, অটোচালক ও সিএনজি চালকদের নিকট থেকে চাঁদা তোলা হয়। আপনারা ঐক্যবদ্ধ হউন, সিংড়াে থেকে চাঁদাবাজদের উৎখাত করা হবে। পাঁচ জন চাঁদাবাজের কাছে চার লক্ষ সিংড়াবাসী জিম্মি হতে পারে না।’

নিয়োগ বাণিজ্যের বিরুদ্ধে কঠোর হুঁশিয়ারী উচ্চারণ করে পলক বলেন, ‘কোন ব্যক্তি এমনকি নিজ দলের কোন নেতা অথবা কর্মী চাকরী দেয়াে নাম করে কারো নিকট থেকে টাকা চাইলে তাকে বেঁধে আমাকে ফোন করবেন। আমার কোন সেকন্ড-ইন-কমান্ড নাই। প্রতিটি নিয়োগ হবে মেধার ভিত্তিতে, ঘুষের টাকায় নয়।’



পলক অভিযোগ করেন, সম্প্রতি সিংড়ার এক ইউনিয়নের নতুন রাস্তা তৈরীতে ব্যাপক অনিয়ম হয়েছে। কর্তৃপক্ষের গাফিলতিতে তা নজরে না এলেও এক তরুণ ফেসবুকে বিষয়টি তাকে অবহিত করেন।

সিডিউলের বাইরে কোন অবকাঠামো নির্মাণ বা রাস্তাঘাট তৈরীর ফলে সেগুলো টেকসই না হলে আগামীতে সংশ্লিষ্টরা জবাবদিহি থেকে রেহাই পাবেন না বলে হুঁশিয়ারী দেন পলক।

এখন পাকিস্তানও আমাদের মত হতে চায় :ড. জাফর ইকবাল

একটা সময় ছিল যখন বাংলাদেশের কোন অর্থনীতি ছিল না। কিন্তু বাংলাদেশের অর্থনীতি আজ বিশ্বের অন্যতম অর্থনীতি বলে মন্তব্য করেছেন বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ ও বিজ্ঞান লেখক ড. মুহম্মদ জাফর ইকবাল। পৃথিবীর সকল দেশ অবাক হয়ে তাকিয়ে থাকে কীভাবে এদেশ এত উন্নতি করছে।

তিনি এসব কথা বলেন শুক্রবার (১১ জানুয়ারী) ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কার্জন হলে উদ্ভিদবিজ্ঞান বিভাগ আয়োজিত ‘বাংলাদেশ বোটানী অলিম্পিয়াডে’র সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে।



এসময় জাফর ইকবাল বলেন, আজ বাংলাদেশ একটা অবস্থানে চলে এসেছে। মাথাপিছু জিডিপি আয় এখন কোথায় চলে গেছে। বাংলাদেশ নিজের পায়ে দাঁড়াচ্ছে। এখন পাকিস্তানও আমাদের মত হতে চায়।

অনুষ্ঠানে বোটানি অলিম্পিয়াড ঢাকা বিভাগের আহ্বায়ক মোহাম্মদ মোজাদ্দেদী আলফেসানীর সভাপতিত্বে আরও উপস্থিত ছিলেন ঢাবি উদ্ভিদবিজ্ঞানবিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. রাখহরি সরকার, বাংলাদেশ বোটানিক্যাল সোসাইটির সভাপতি ড. এম এ গফুরসহ বিশিষ্ট উদ্ভিদবিজ্ঞানীরা। অলিম্পিয়াডে ঢাকা বিভাগের বিভিন্ন স্কুল-কলেজের প্রায় অর্ধসহস্রাধিক শিক্ষার্থী অংশ নেয়।



অলিম্পিয়াডে যোগ দিতে আসা শিক্ষার্থীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, তোমাদের হাতেই দেশ গড়ার দায়িত্ব। সুন্দরভাবে দেশটা গড়ে তোলার মাধ্যমে তোমরা তোমাদের দায়িত্ব পালন করবে। শিক্ষার্থীদের উদ্ভিদবিজ্ঞান বিষয়ে পড়ার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, বর্তমানে উদ্ভিদবিদ্যা একটি অভিজাত বিষয়।

এর আগে শিক্ষার্থীদের উদ্ভিদবিজ্ঞান বিষয়ে আগ্রহ বাড়াতে দেশের মোট আটটি বিভাগের বিভিন্ন স্কুল-কলেজে ‘বোটানি অলিম্পিয়াডের আয়োজন করা হয়। বাংলাদেশ বোটানিক্যাল সোসাইটি ও জাতীয় বিজ্ঞান জাদুঘর যৌথভাবে এই আয়োজন করে।



বিশ্ববিদ্যালয়ের চার বছরের শিক্ষা দিয়ে ভাল চাকরি সম্ভব নয়: ইউজিসি চেয়ারম্যান”””

বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ নগরের জামালখান সিআইইউ ক্যাম্পাসের অডিটোরিয়ামে ২০১৯ সালের স্প্রিং সেমিস্টারে ভর্তি হওয়া শিক্ষার্থীদের জন্য এই ওরিয়েন্টেশন অনুষ্ঠান আয়োজন করে ।

ইউজিসি চেয়ারম্যান তরুণদের দেশ গড়ার চালিকাশক্তি উল্লেখ করে বলেন, দেশের প্রতি ভালোবাসা কিংবা দায়িত্ববোধ বাড়াতে হলে মহান মুক্তিযুদ্ধ থেকে শিক্ষা নিতে হবে। সিআইইউ’র শিক্ষার সুষ্ঠু পরিবেশ দেখে সন্তোষ প্রকাশ করে অধ্যাপক আবদুল মান্নান বলেন, এই বিশ্ববিদ্যালয়ের অ্যাকাডেমিক কার্যক্রম অত্যন্ত চমৎকার।



প্রশাসনিক শাখাতেও রয়েছে গতিশীলতা। শিক্ষার্থীরা যাতে মাদক ও জঙ্গিবাদ থেকে দূরে থাকে, সেদিকে নজর দিতে উপাচার্যকে অনুরোধ জানান তিনি। অনুষ্ঠানে শিক্ষার্থীদের পড়ালেখার পাশাপাশি তথ্য-বিজ্ঞান-প্রযুক্তি ও কম্পিউটার জ্ঞানে সমৃদ্ধ হওয়ার পরামর্শ দেন ইউজিসি চেয়ারম্যান।

ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার আনজুমান বানু লিমার সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন স্কুল অব সায়েন্স অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের ডিন অধ্যাপক ড. মো. রেজাউল হক খান, স্কুল অব লিবারেল আর্টস অ্যান্ড সোশ্যাল সায়েন্সের ডিন অধ্যাপক কাজী মোস্তাইন বিল্লাহ, স্কুল অব ল’র উপদেষ্টা অধ্যাপক মো. জাকির হোসেন, সিআইইউর বিজনেস স্কুলের ডিন ড. মোহাম্মদ নাঈম আব্দুল্লাহ, প্রক্টর অধ্যাপক ড. এম এম নুরুল আবসার নাহিদ প্রমুখ। ওরিয়েন্টেশন অনুষ্ঠানে নবীন শিক্ষার্থী ছাড়াও তাদের অভিভাবক, বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের শিক্ষক ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।



তিনি আরও বলেন, বাংলাদেশে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে ৪৯টি। বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের সংখ্যা ১০৪টি। মোট ১৯ লাখ শিক্ষার্থী এখন উচ্চশিক্ষার পাঠ নিচ্ছে।

তবে চট্টগ্রামে গুণগত শিক্ষা ছড়িয়ে দেওয়ার মত বিশ্ববিদ্যালয়ের সংখ্যা হাতেগোনা। যারা সিআইইউতে ভর্তি হয়েছে তারা ঠিক সিদ্ধান্ত নিয়েছে। এখানকার প্রতিটি শিক্ষার্থী দেশকে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে তুলে ধরবে-এমনটাই চাওয়া আমার।



সভাপতির বক্তব্যে সিআইইউর উপাচার্য অধ্যাপক ড. মাহফুজুল হক চৌধুরী বলেন, উচ্চশিক্ষায় একটি আদর্শ বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে নানামুখী পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করে যাচ্ছে এই শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান। অত্যাধুনিক ল্যাব স্থাপন, বইয়ে ঠাসা লাইব্রেরি, মনোরম পরিবেশসহ একাধিক সুযোগ সুবিধা নিশ্চিত করার মাধ্যমে নতুন ধারার শিক্ষা ছড়িয়ে দিতে সিআইইউ বদ্ধপরিকর বলে বক্তব্যে উল্লেখ করেন তিনি।

আল্লামা শফীর বক্তব্য জঘন্য : শেখ হাসিনা

ওয়াজে নারীদের নিয়ে আহমদ শফীর বক্তব্যকে জঘন্য বলে আখ্যায়িত করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। হেফাজতে ইসলামের আমিরের এক ওয়াজ নিয়ে সম্প্রতি দেশব্যাপী নিন্দার ঝড়ের মধ্যে প্রধানমন্ত্রীও শনিবার গণভবনে এক অনুষ্ঠানে বক্তব্যে তীব্র অসন্তোষ প্রকাশ করেন।

শেখ হাসিনা বলেন, “আল্লামা শফীর একটা কথা/দুই একদিন ধরে টেলিভিশনে দেখছি। আল্লামা শফী যা বলেছেন, তা অত্যন্ত জঘন্য বলে আমি মনে করি। উনি মেয়েদের সম্পর্কে অত্যন্ত নোংরা ও জঘন্য কথা বলেছেন।”

হাটহাজারীতে ওই ওয়াজের ভিডিও ক্লিপ সামাজিক যোগাযোগের ওয়েবসাইটগুলোতে ছড়িয়ে পড়ার পর বিভিন্ন মহল থেকে এর তীব্র সমালোচনা ওঠেছে।



ওয়াজে আহমদ শফী নারীদের চতুর্থ শ্রেণির বেশি পড়াতে নিষেধ করেন, সমালোচনা করেন সহশিক্ষার। নারীদের চাকরি না করে বাড়িতে রাখার পরামর্শ দেন তিনি। নারীদের নিয়ে আরো যেসব কথা তিনি বলেছেন, তাও কুরূচিপূর্ণ বলে সমালোচনা উঠেছে।

শেখ হাসিনা বলেন, “উনার কি মা নেই? উনি কি মায়ের পেট থেকে জন্মাননি? উনার কি বোন-স্ত্রী নেই? আমাদের মা-বোন-স্ত্রীদের সম্মান তো আমাদের রক্ষা করতে হবে।”

ওই ওয়াজে নারীদের পোশাক-আশাক নিয়ন্ত্রণ এবং জন্ম নিয়ন্ত্রণের বিরুদ্ধেও কথা বলেন হাটহাজারী মাদ্রাসার মহাপরিচালক শফী।

তিনি বলেন, মেয়েদের কাজ ঘরের ভেতর। তাদের কাজ স্বামীর ঘরের আসবাবপত্র দেখাশোনা করা ও ছেলে সন্তান লালন-পালন করা।



প্রধানমন্ত্রী বলেন, “ইসলাম ধর্ম শান্তির ধর্ম। ইসলাম ধর্ম প্রথম যিনি গ্রহণ করেছিলেন- তিনি একজন মহিলাই ছিলেন। ইসলাম ধর্ম প্রথম গ্রহণ করেন বিবি খাদিজা। আর কেউ সাহস করে তা করেনি। এটা ওনার (শফী) মনে রাখা উচিত ছিল।

“ইসলাম ধর্মে যে জেহাদ হয়। সেই জেহাদে প্রথম যে শহীদ হন- তিনি বিবি সুমাইয়া।”

“তাদের সম্পর্কে এই নোংরা আর জঘন্য কথা বলা, আবার এই নারী নেতৃত্বকে মেনে নিয়েই,” গণজাগরণবিরোধী হেফাজতের সঙ্গে বিএনপির সম্পর্কের দিকে ইঙ্গিত করেন শেখ হাসিনা।

“চৌঠা মে বিরোধীদলীয় নেতা একটা সমাবেশ করলেন। আমাকে ৪৮ ঘণ্টার আলটিমেটাম দিলেন; বললেন যে, আমি পালানোরও পথ পাব না।”

“আর, ৫ মে হেফাজতে ইসলাম ঢাকা অবরোধ করল। তারা এক জায়গায় বসতে চাইল; আমরা কিন্তু, আপত্তি করিনি। তারা শাপলা চত্বরে বসল। এরপর, বায়তুল মোকাররম মসজিদের ভেতরে আগুন দেয়া হল। জায়নামাজ পোড়ানো হল।”



“এরপর, প্রতিবাদ কিন্তু উনি (খালেদা জিয়া) করেননি। কেউই করেননি।”

বায়তুল মোকাররমে হামলার সঙ্গে ইসলামী ছাত্রশিবিরের সম্পৃক্ততা রয়েছে বলেও প্রধানমন্ত্রী তার বক্তব্যে উল্লেখ করেন।

“পাঁচ তারিখ বায়তুল মোকাররমের সামনে শত শত কোরআন শরিফ পোড়ানো হয়েছে। আমি জানি না, ইসলামের ইতিহাসে এত কোরআন শরিফ এভাবে পোড়ানো হয়েছে কি না।”

“কারা পুড়িয়েছে? হেফাজতের আর জামাত-শিবিরের ক্যাডাররা। সব টেলিভিশনে লাইভ দেখানো হচ্ছিল। তাদের হাত-পা ধরে হকাররা কাঁদছিল। বলছিল, আমাদের রুটি-রুজির পেটে লাথি দিয়েন না।”

“যারা হেফাজতের আর ইসলামের নাম নিয়ে কোরআন শরিফ পোড়ালো- তারা ইসলামের কী হেফাজত করবে?”



“তারা ধর্মের এত বড় অবমাননা করে- কীভাবে ধর্মকে রক্ষা করবে?”

মতিঝিলে হেফাজতের সমাবেশকে কেন্দ্র করে অরাজকতার কথাও তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী।

“এই সব ঘটনা ঘটিয়ে মহিলাদের সম্পর্কে এখন নোংরা কথা বলছে। উনি কী মায়ের পেট থেকে জন্মাননি? মায়ের সম্মানটুকু রাখবেন না? ওনার কি স্ত্রী নেই? তাদের সম্মান রাখবেন না?”

“ওনার জিবে পানি আসে। উনি যে নেত্রীর পাশে বসতেন- তাকে যদি তেঁতুল মনে করে ওনার জিবে পানি আসে- তাহলে আমার কিছু বলার নাই।”
হেফাজত আমিরের এই ধরনের বক্তব্যের বিরুদ্ধে দেশের নারীরা সোচ্চার হবে বলে আশা করছেন প্রধানমন্ত্রী।

“আর নেতৃত্বে কে থাকবে, না থাকবে তা জনগণ সিদ্ধান্ত নেবে। যদি জনগণ সিদ্ধান্ত নেয়- সেখানে তাদের কী বলার আছে?

আওয়ামী লীগের অবস্থান ব্যাখ্যা করে শেখ হাসিনা বলেন, “আমরা শালীনভাবে চলাফেরা করার পক্ষে। পোশাক পরিধেয় কিন্তু দেশ কাল পাত্র হিসাবে। জলবায়ুর ওপর নির্ভর করে পোশাক-পরিচ্ছদ।



“সব দেশের পোশাক তো এক না। আমি যদি শীতের দেশের পোশাক এখন পরি, আর গরমের পোশাক শীতের দেশে পরি- তাহলে তো হবে না। যেখানে বালুর ঝড়, সেখানে মুখ ঢাকার ব্যবস্থা রাখতেই হয়।”

“আমি বহুবার হজ করেছি। মাথার ওপর একটা ওড়না দিয়ে রাখতেই হয়। শালীনতার সঙ্গে সকলে চলবে- এটা আমরা চাই।”

জামায়াতে ইসলাম অপপ্রচার চালাতে তাদের নারীকর্মীদের ব্যবহার করে বলেও শেখ হাসিনা অভিযোগ করেন।



যুদ্ধাপরাধের বিচারের দাবিতে গড়ে ওঠা গণজাগরণের মঞ্চের বিরুদ্ধে নাস্তিকতার অভিযোগ তুলে পাঁচ মাস আগে রাজপথে নামে চট্টগ্রামভিত্তিক হেফাজতে ইসলাম।

এর আগে জাতীয় নারী উন্নয়ন নীতিমালা বাতিলের দাবিতে তারা মাঠে নামলেও সম্পত্তিতে নারী ও পুরুষের সমান অধিকার না দেয়ার বিষয়ে আশ্বস্ত করার পর তাদের আর মাঠে দেখা যায়নি।

গত ৬ মার্চ মতিঝিলে সমাবেশ করে ১৩ দফা দাবি উপস্থাপন করে হেফাজতে ইসলাম। ১৩ দফার চার নম্বর দাবিতে বলা হয় ‘ব্যক্তি ও বাকস্বাধীনতার নামে সব বেহায়াপনা, অনাচার, ব্যভিচার, প্রকাশ্যে নারী-পুরুষের অবাধ বিচরণ, মোমবাতি প্রজ্বালনসহ সব বিজাতীয় সংস্কৃতির অনুপ্রবেশ বন্ধ করতে হবে।’

এছাড়া প্রাথমিক স্তর থেকে উচ্চমাধ্যমিক স্তর পর্যন্ত ইসলাম ধর্মীয় শিক্ষাকে বাধ্যতামূলক করারও দাবিও তোলে সংগঠনটি।