শরীরে বঙ্গবন্ধুর রক্ত না থাকলেও আদর্শ রয়েছে : কাদের সিদ্দিকী

কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি বঙ্গবীর কাদের সিদ্দিকী বীরোত্তম বলেছেন, আমি নির্বাচনই করতে চাই না, সারাদেশ ঘুরে শেখ হাসিনাকে দেখাতে চাই তিনি তলাফাটা নৌকা নিয়ে কতদূর যেতে পারেন।

তিনি একাই বঙ্গবন্ধুর কন্যা নন আমিও বঙ্গবন্ধুর রাজনৈতিক ছেলে। আমার গায়ে বঙ্গবন্ধুর রক্ত না থাকলেও তার আদর্শ রয়েছে।

‘ভোট ডাকাতি দিবস’ পালন উপলক্ষে শনিবার বিকেলে সখীপুর পৌরসভায় নিজ বাসভবনে আয়োজিত প্রতিবাদ সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

কাদের সিদ্দিকী বলেন, বাংলাদেশে এতো বড় কারাগার নেই, যেখানে খালেদা জিয়াকে আটকে রাখা যায়। যে টাকা তছরুপ হয়নি, সেই দুই কোটি টাকার জন্য যে বিচারক খালেদা জিয়াকে জেল দিয়েছেন ওই বিচারকেরও একদিন বিচার হবে। আমিই ওই বিচারকের বিরুদ্ধে মামলা করব। আগামী নির্বাচন অবরুদ্ধ গণতন্ত্র পুনরুদ্ধার ও খালেদা জিয়াকে মুক্ত করার নির্বাচন।

তিনি আরও বলেন, অনেক কথা শুনেছি, শেষ পর্যন্ত রাজাকারের খেতাব পেয়েছি। তাই গত ছয় বছরে আমি শহীদ মিনার, স্মৃতিসৌধ ও গণভবনে যাইনি। ৭৫’র প্রতিরোধ যোদ্ধাদের মিলনমেলার বিষয়ে কথা বলতে গণভবনে যাওয়ার জন্য নয়বার ফোন করে ব্যর্থ হয়েছি। পরে চিঠিও লিখেছি, কিন্তু জবাব পাইনি। আগামী ৩০ ডিসেম্বরের পর ওনাকেই (শেখ হাসিনা) আমাকে চিঠি লিখতে হবে।

সভায় উপজেলা কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সভাপতি আতোয়ার রহমানের সভাপতিত্বে জাতীয় ঐক্যফ্রন্টের নেতা ও ডাকসুর সাবেক ভিপি সুলতান মোহাম্মদ মনসুর, কৃষক শ্রমিক জনতা লীগের সাধারণ সম্পাদক হাবীবুর রহমান তালুকদার বীরপ্রতিক, জেলা সভাপতি অ্যাডভোকেট রফিকুল ইসলাম, সহসভাপতি আব্দুল হালিম সরকার লাল, মীর জুলফিকার শামীম, বিএনপি নেতা শেখ মোহাম্মদ হাবীব, বাসাইল উপজেলা চেয়ারম্যান শহীদুল ইসলাম, শরীফ হোসেন পাপ্পু প্রমুখ।

১৯৯৯ সালের ১৫ নভেম্বর টাঙ্গাইল-৮ (সখীপুর-বাসাইল) আসনের উপনির্বাচনে ভোট কারচুপির অভিযোগ এনে প্রতিবছর কৃষক শ্রমিক জনতা লীগ ‘ভোট ডাকাতি দিবস’ হিসেবে পালন করে আসছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *